কোরবানির জন্য শ্রীমঙ্গলে প্রস্তুত ১১ হাজার ৮৪৫টি গবাদিপশু

নিজস্ব প্রতিবেদক
এহসান বিন মুজাহির থানা প্রতিনিধি শ্রীমঙ্গল , মৌলভীবাজার
প্রকাশিত: বুধবার ১২ই জুন ২০২৪ ০৭:৫৭ অপরাহ্ন
কোরবানির জন্য শ্রীমঙ্গলে প্রস্তুত ১১ হাজার ৮৪৫টি গবাদিপশু

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে আসন্ন ঈদুল আজহা ঘিরে উপজেলায় কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে ১১ হাজার ৮৪৫টি গবাদিপশু। ঈদকে ঘিরে ইতোমধ্যে শ্রীমঙ্গল উপজেলার সবচেয়ে বড় গবাদিপশুর হাট শহরের সাগরদিঘী পাড়ে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী গবাদিপশুর হাট ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত পশু বিক্রেতা ও ক্রেতাদের আনাগোনায় জমে ওঠেছে।  


গত রবিবার (৯ জুন) থেকে শুরু হওয়া পশুর হাটে বিক্রেতারা বড়, ছোট ও মাঝারি সাইজের হাজার হাজার গরু, ছাগল, মহিষ ভেড়া নিয়ে পসরা সাজিয়ে বসে আছেন। ক্রেতারা তাদের চাহিদা মতো পশু দেখে দামাদামি করছেন। 


এছাড়াও শ্রীমঙ্গল উপজেলার সিন্দুরখান বাজার, কালাপুর বাজারসহ বিভিন্ন খোলা মাঠেও কোরবানির পশু ক্রয়-বিক্রয় চলছে। 


সাগরদিঘী রোডের পশুর হাটের ইজাদার আলহাজ্ব আজিজুর রহমান দুলাল জানান, এবার ক্রেতারা ১ লাখ টাকার প্রতিটি গরুপ্রতি ১ হাজার টাকার রশিদ কেটে গরু ক্রয় করতে পারবেন। ঈদের আগের রাত রবিবার পর্যন্ত একটানা গবাদি পশুর হাট চলমান থাকবে বলেও তিনি জানান।


এদিকে শ্রীমঙ্গল ইউনিয়নের হাইল হাওর সংলগ্ন জেটি রোডে অবস্থিত শ্রীমঙ্গল এগ্রো খামারে গিয়ে দেখা যায় ৪ কেয়ার জায়গাজুড়ে তৈরি করা বিশাল গবাদি পশুর খামারে রয়েছে ফ্রিজিয়ান জাতের ৩ শতাধিক গরু। এরমধ্যে এবারের কোরবানির জন্য  বিক্রিযোগ্য ছোট-বড় মোট সাতাশটি ষাঁড় রয়েছে। যেগুলোর মূল্য দেড় লাখ থেকে শুরু করে ১২ লাখ টাকা পর্যন্ত। খামারের গরুগুলোর মধ্যে এক টনেরও বেশি ওজনের একটি ষাঁড় ছাড়া বাকিগুলো গরুগুলো ওজনে বিক্রি করা হচ্ছে। কেজিপ্রতি দাম চাওয়া হচ্ছে ৫০০ টাকা। খামারে সর্বনিম্ন ৩০০ থেকে সর্বোচ্চ ১১০০ কেজি ওজনের গরু রয়েছে।  ইতোমধ্যে খামারের কয়েকটি গরু ওজনে বিক্রি হয়েছে জানান খামারের সুপার ভাইজার সাগর আহমেদ। 


শ্রীমঙ্গল এগ্রো খামারের বিশেষ আকর্ষণের মধ্যে রয়েছে এক টনেরও বেশি ওজনের একটি গরু। উচ্চতা প্রায় ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি এবং লম্বা প্রায় সাড়ে ৯ ফুট। ষাঁড়টির মূল্য ১২ লাখ টাকা দাম চাচ্ছেন খামার কর্তৃপক্ষ। এখন পর্যন্ত ক্রেতা কর্তৃক এই ষাঁড়ের সর্বোচ্চ দাম ওঠেছে সাড়ে ৮ লাখ টাকা। তবে ১০ লাখ টাকা হলে বিক্রি করা হবে বলে জানান খামার কর্তৃপক্ষ। 


শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. কর্ণ চন্দ্র মল্লিক জানান, শ্রীমঙ্গল উপজেলায় এবার কোরবানির লক্ষ্যমাত্রা ১১ হাজার ৫৬৫টি গবাদিপশু। উপজেলায় ছোট-বড় ৬০৭টি খামারে মোট ১১ হাজার ৮৪৫টি গবাদিপশু প্রস্তুত রয়েছে। এরমধ্যে গরু রয়েছে ৮ হাজার ৮১২টি, মহিষ ১২৬টি, ছাগল ২৫০৪টি, ভেড়া ৪০৩টি। উপজেলায় মোট চাহিদা রয়েছে ১১ হাজার ৫৬৫টি গবাদিপশু। আসন্ন ঈদুল আজহায় কোরবানির জন্য গবাদিপশুর কোনো ঘাটতি নেই। চাহিদার চেয়ে ২৮০টি গবাদিপশু বেশি রয়েছে।